বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
দেশের প্রতিটি জেলায় সাংবাদিক নিয়োগ চলছে।

খোকসায় স্ক্যাভেটর পোড়ানোর মামলা তুলে নিতে বাদীকে হুমকির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৩৩৯ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২১, ৯:১৬ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার খোকসা ইউনিয়নের হিজলাবট খানপুর বালু মহাল থেকে বালু উত্তোলনের জন্য রাখা ৪০ লক্ষ টাকা মূল্যের স্ক্যাভেটর পুড়ানোর মামলায় আসামিরা জামিনে বের হয়ে মামলা তুলে নিতে বাদীকে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জানা যায়, কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার খোকসা ইউনিয়নের হিজলাবট খানপুর বালু মহাল থেকে বালু উত্তোলনের জন্য চলতি মাসের ১৫ জানুয়ারি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের একটি বিজ্ঞপ্তির ভিত্তিতে কুমারখালী উপজেলার সদকী ইউনিয়নের জিলাপিতলা এলাকার ব্যবসায়ী মাসুদ রানা ইজারা পায়। ইজারার চুক্তি অনুযায়ী বালু উত্তোলনের জন্য ইজারাদার মাসুদের ছোট ভাই নজরুল ইসলাম বালি উত্তোলন করতে গেলে ১৬ জানুয়ারি কয়েকজন ব্যক্তি হুমকি ধামকি দিতে থাকে। এর পরের দিন ১৭ জানুয়ারি রাতের আধারে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা মূল্যের স্ক্যাভেটরটি পুড়িয়ে সম্পূর্ণ অকেজো করে দেয়।
এ ব্যাপারে গত ১৯ জানুয়ারি ইজারাদার মাসুদ রানা বাদী হয়ে সুনারুল (৪০) পিতা শামসুদ্দিন মন্ডল, গ্রাম- ওসমানপুর, কাজেম আলী মন্ডল (৪০) পিতা মৃত ফাজিল মন্ডল, গ্রাম- হিজলাবট আদর্শগ্রাম, মো. ফারুক হোসেন (৩০) পিতা আব্দুল করিম, পাপ্পু (৩০) পিতা ওয়াহেদ আলী, মো. কামরুল (৪০) পিতা আব্দুর রাজ্জাক সবার গ্রাম ওসমানপুর, সকলের থানা খোকসা, জেলা কুষ্টিয়াকে আসামি করে খোকসা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন যার মামলা নম্বর-০৮, তারিখ- ১৯/০১/২০২১। উক্ত মামলায় আসামিরা আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পায়।
গত ২৯ জানুয়ারি বিকালে উক্ত বালি মহালের ইজারাদার মাসদু রানা বালি মহাল দেখতে গেলে উক্ত জামিন প্রাপ্ত ব্যক্তিরা মাসুদ রানাকে দেখে মামলা তুলে নিতে অকথ্যভাষায় গালাগাল দেয় ও মাসুদ রানার পরিবারের লোকজনকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভিতি প্রদর্শন করে এবং হুমকি দেয়। এর ফলে মাসুদ রানা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এ ব্যাপারে মাসুদ রানা কুষ্টিয়ার খোকসা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। জিডি নম্বর- ১১৭১, তারিখ-৩০/০১/২০২১।
এ বিষয়ে মাসুদ রানা বলেন, গত ২৯ জানুয়ারি বিকালে আমি উক্ত বালি মহাল দেখতে গেলে উক্ত জামিন প্রাপ্ত ব্যক্তিরা আমাকে দেখে মামলা তুলে নিতে অকথ্যভাষায় গালিগালাজগা দেয় ও আমার পরিবারের লোকজনকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভিতি প্রদর্শন করে এবং হুমকি দেয়। এর ফলে আমি পরিবার নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি প্রশাসনের কাছে আমার এবং আমার পরিবারের নিরাপত্তা কামনা করছি।
খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার জানান, এ ব্যাপারে একটা সাধারণ ডায়েরি হয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন


এ জাতীয় আরো খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর