শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
লন্ডনে রোটারেক্ট নাসিম উদ্দিন ও ইঞ্জিনিয়ার এম সায়েম খাঁন সম্বর্ধিত বিভাগীয় গণ সমাবেশ, শোক র‌্যালিসহ দুই মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপির জনপ্রতিনিধি যখন চোরের সরদার ‘নির্বাচনে ইসির নির্দেশনা মেনে পুলিশ চলবে’ বাংলাদেশে আগামী নির্বাচন অবাধ হবে, মার্কিন রাষ্ট্রদূতের প্রত্যাশা রোহিঙ্গাদের অবশ্যই ফিরে যেতে হবে কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচন ২ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন ইবিতে গুচ্ছভুক্ত পদ্ধতিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ভর্তির বিষয়ে দ্বিতীয় সভা কুষ্টিয়া গড়াই নদীতে ভাঙ্গন; হুমকির মুখে স্কুল-মসজিদ সহ কয়েক’শ পরিবার
ঘোষণা:
দেশের প্রতিটি জেলায় সাংবাদিক নিয়োগ চলছে।

মামুনুল হককে নিয়ে কুষ্টিয়ায় সংঘর্ষ ॥ আহত-২০ ॥ বাড়ি ভাংচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৩১৪ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১, ৯:০২ অপরাহ্ন

হেফাজত নেতা মামুনুল হকের পক্ষে-বিপক্ষে কথা-কাটাকাটির জের ধরে কুষ্টিয়ার গ্রামে আওয়ামী লীগের দুই গ্র“পের সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। এ সময় ১০টি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। সোমবার সকাল ৭টায় সদর উপজেলার জিয়ারখি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ বলছে, পুরনো মারামারির মামলা মীমাংসার জের ধরে এই সংঘর্ষ ঘটেছে।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জিয়ারখীর বাসিন্দা আরাশেদ আলী বলেন, ১২ এপ্রিল ভোর রাত থেকেই দুই পক্ষ দেশিও অস্ত্র নিয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষ শুরু করে। এতে দুই পক্ষের ২০ জন আহত হয়েছে। এরমধ্যে ১৮ জনকেই কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি (অপারেশন) মামুনুর রহমান জানান, জিয়ারখী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুল হক ও সাবেক সভাপতি আহসান সরদারের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। তাদের একটি মারামারির মামলা নিয়ে সালিসও হয়েছে দুই সপ্তাহ আগে। এ ঘটনার জের ধরেই এই সংঘর্ষ হয়েছে বলেন তিনি। এর মধ্যে মামুনুলের কোন বিষয় নেই বলেন তিনি।
কিন্তু গোলমালকারী দুই পক্ষের নেতা দাবি করেছেন হেফাজত নেতা মামুনুলকে নিয়েই পক্ষে-বিপক্ষে ১১ এপ্রিল বাগবিতন্ডা এবং পরদিন সকালে মারামারির ঘটনা ঘটে।
জিয়ারখী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আহসান সরদার বলেন, জিয়ারখি ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শরীফুল ইসলাম ঘোষণা দেন এলাকায় হেফাজতের কর্মী-সমর্থক আছে। তাদের শাস্তি দিতে হবে। এই বলে সে আওয়ামী লীগের সমর্থক বিল্লাল হোসেন ও মো. মতিনকে ১১ এপ্রিল মারধর করে। এর পেক্ষিতে আহসান সরদারের সঙ্গেও কথা কাটাকাটি হয় বলে দাবি করেন তিনি। আহসান সরদার বলেন, এর জের ধরে ভোর রাতে শরীফুল ইসলাম ও তার নেতা জিয়ারখী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুল হকের লোকজন আমার বাড়িতে হামলা করে। এরপর দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। এদিকে, জিয়ারখী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুল হক বলেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শরীফুল ইসলাম তার ফেসবুকে হেফাজতের মামুনুলের বিপক্ষে পোস্ট করেন। প্রতিপক্ষ আহসান সরদারের কয়েকজন ওই পোস্টে মামুনুল হকের পক্ষ নিয়ে কমেন্ট করেন। তারা শরীফুল ইসলামকে নরেন্দ্র মোদির সন্তান বলে কটুক্তি করেন। এ ঘটনার জের ধরে সোমবার সকালে দ্পুক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। দুই পক্ষের ইটপাটকেল নিক্ষেপে এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এ সময় উভয়পক্ষের ১০টি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়। এতে দুপক্ষের কমপক্ষে ২০ আহত হন। এদের মধ্যে সাইদুল (৪০) নামে একজনকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি শওকত কবীর বলেন, পুলিশ ৬ জনকে আটক করেছে। দুই পক্ষই আলাদা করে মামলা করতে চেয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন


এ জাতীয় আরো খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর