বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৯:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
মেধাবী ছাত্র আব্দুল্লাহ আল মামুন এর পাশে দাঁড়িয়েছেন নিঃস্বার্থ সেবা ফাউন্ডেশন জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে ইবিতে সভা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক হলেন রজত কান্তি দেব কক্সবাজারে দৈনিক ভোরের চেতনা পত্রিকার ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উৎযাপন মিরপুরে নার্সারি ব্যবসায়ী হত্যাকাণ্ডে গ্রেফতার ১ ইবি ও জবি’র গবেষণা সহযোগিতা সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর উন্নত চিকিৎসার জন্য চ্যালেঞ্জকে ঢাকায় প্রেরণ ব্রাজিল ফ্যান ক্লাবের বর্ণাঢ্য র‌্যালী বাউলদের উপর হামলা ও সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদী তৎপরতার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইবি’র ৪৩ বছর পূর্ণ হচ্ছে কাল
ঘোষণা:
দেশের প্রতিটি জেলায় সাংবাদিক নিয়োগ চলছে।

স্বাধীনতা শব্দটি কি করে এত প্রিয় হয়ে ওঠে

লন্ডন অফিস / ৪২৯ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ৭:৪৯ পূর্বাহ্ন

শুরুটা বাড়ি ভাড়া নিয়ে করি । আমি যখন লন্ডনে একটি পরিবারের সাথে একটি কক্ষ ভাড়া নিলাম। আমি তাদেরকে নিয়মিত ভাড়া পরিশোধ করছি, কিন্তু যিনি পুরো বাড়িটা ভাড়া নিয়েছেন কিভাবে তিনি স্বেচ্ছাচারী হয়ে উঠছেন তিনি নিজেই জানেন না। তিনি বলছেন আপনি ঐ জিনিসটা ভাল করে পরিষ্কার করে রাখবেন, আপনি এই সময় থেকে এই সময়ের মধ্যে আপনার কাজ শেষ করবেন । আসলে কিন্তু এই বাড়িটার মালিকও যে আমি এটা তিনি ভুলে গেছেন। আসলে এখান থেকে শুরু হয় চিন্তা তাহলে তো আমি পরাধীন হয়ে রইলাম । তখন সিদ্ধান্ত হল একা বাড়ি ভাড়া করি । এরপর আমি আমার মত করে ঘুম থেকে উঠি, দরজা খুলতে শব্দ হলে আর অসুবিধা হয়না । তাঁর মানে মনে মনে আমি স্বাধীন। আর এটাই একটা অনিয়মের বিজয় । এবার ফিরলাম দেশ স্বাধীন পূর্ববর্তী অবস্থায়, দেশ আমাদের, কিন্তু চাকরির সুবিধা ভোগ করবে পশ্চিম পাকিস্তানিরা। ব্যাংকের টাকা পূর্ব পাকিস্তানের, চলে যাবে পশ্চিম পাকিস্তান, মায়ের ভাষা বাংলা, না সরকার চাহিল পূর্ব পাকিস্তানে বাংলার পরিবর্তে উর্দু হবে রাষ্ট্র ভাষা, এই যে চাপিয়ে দেয়া এটাই মানুষকে বাধ্য করে নতুন একটি পথ খুঁজতে আর তাঁর নাম হচ্ছে স্বাধীনতা। তখন ১৯৫২ সাল প্রথম শুরু ভাষা আন্দোলনের। আমরা, সালাম, বরকত , রফিক , জব্বারের জীবনের বিনিময়ে রক্ষা করলাম নিজের ভাষাকে । সে সংগ্রাম যে কতটা যৌক্তিক ছিল তা বুঝিয়ে দিয়েছে জাতিসংঘ বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার মর্যাদা দিয়ে । তারপর ১৯৬৬ সালের চয় দফা, ১৯৬৯ সালের গন অভ্যুথান, ১৯৭০ সালের নির্বাচন, ৭ই মার্চের ভাষণের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙ্গালীর কথা, বাঙ্গালীর চিন্তা পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছিলেন পশ্চিম পাকিস্তানের শাসক গোষ্ঠীর কাছে। আর মূলত এ থেকেই শুরু স্বাধীনতা সংগ্রামের । ২৫ শে মার্চ বঙ্গবন্ধু গ্রেফতার পূর্বে স্বাধীনতার ঘোষনা লিখে যান, পরবর্তীতে তা আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল হান্নান ঘোষনা দিলেও, সামরিক সাপোর্ট দরকার ছিল তাই মেজর জিয়াউর রহমানকে দিয়ে আবার ২৭ শে মার্চ কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষনা করান কৌশলী বাঙ্গালীরা । তিনি শেখ মুজিবুর রহমান এর পক্ষ থেকে ঘোসনা দেন । ৯ মাস সংগ্রামের পরে স্বাধীনতা লাভ করে বাঙ্গালিরা । স্বাধীনতার জন্য ৩০ লক্ষ লোক শহীদ হন, ইজ্জত হারান অনেক মা, বোন। পক্ষান্তরে স্বাধীনতা শব্দটি এভাবেই আমাদের হল। আর আমরা এখন নিজস্ব দেশ, নিজস্ব পতাকা নিয়ে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যে উজ্জ্বল একটি জাতি। আজকে আমরা পাকিস্তানকে সহ অনেক দেশকে পিছনে ফেলে বিশ্বের কাছে একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছি । এ সবের পিছনে আমাদের প্রবাসী ভাইয়েরা বিশাল ভূমিকা রাখছেন । তাই সময়ের দাবি প্রবাসী ভাইদের জন্য ভি, আই ,পি , মর্যাদা নিশ্চিত করা হোক এবং তাদের মাঝ থেকে প্রবাসী মন্ত্রী করেন। বাংলাদেশের হয়ে মুক্তিযুদ্ধের সময়ও প্রবাসী বাঙ্গালীরা বিশ্ববাসীর সমর্থন আদায় করতেও কাজ করেছিল। তাই সরকারের কাছে আবেদন প্রবাসীদের এই দাবীকে আপনারা সম্মানের সহিত বাস্তবায়ন করুন দয়া করে ।

লেখকঃ আজিজুল আম্বিয়া
(মাস্টার্স. বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়)
সহ-সভাপতি, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, কেন্দ্রীয় কমিটি।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন


এ জাতীয় আরো খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর