শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ০৭:৫২ অপরাহ্ন
ঘোষণা:
দেশের প্রতিটি জেলায় সাংবাদিক নিয়োগ চলছে।

সাংবাদিক রোজিনার জামিন আদেশ রোববার

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৫৫ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২০ মে, ২০২১, ৭:৪৩ অপরাহ্ন

 

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিসিয়াল সিক্রেটস আইনে করা মামলার জামিন শুনানি শেষ হলেও আজ বৃহস্পতিবার তার জামিন হয়নি। তার জামিনের আদেশের জন্য আগামী রোববার দিন ধার্য করেছেন আদালত।

এর আগে আজ দুপুরে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভার্চুয়ালি এ শুনানি শুরু হয়। রোজিনা ইসলামের জামিন শুনানির জন্য সকাল থেকেই আদালতে অপেক্ষায় থাকেন আইনজীবীরা। আদালতের সামনে গণমাধ্যমকর্মীদেরও ভিড় করতে দেখা গেছে।

আদালতের বাইরে অপেক্ষায় আছেন রোজিনা ইসলামের স্বামী মনিরুল ইসলাম মিঠু ও তার স্বজনেরা। পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে অবস্থান নিয়ে আছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

রোজিনা ইসলামের মুক্তি এবং মামলা প্রত্যাহার দাবিতে চলমান আন্দোলনের মধ্যেই তার বিরুদ্ধে অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে করা মামলার তদন্তভার গতকাল বুধবার পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) ওপর ন্যস্ত করা হয়েছে। এখন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা শাখা মামলা তদন্ত করবে।

রোজিনার আইনজীবী প্রশান্ত কুমার কর্মকার বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতিও অনিয়ম নিয়ে ইতিপূর্বে যে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করেছে তা ছিলো জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট। তিনি একজন পেশাদার সাংবাদিক। তার বিরুদ্ধে যে ধারায় মামলা করা হয়েছে তা সাংঘর্ষিক ও অনাকাঙ্ক্ষিত। রোজিনা ইসলামের একটি শিশু সন্তান রয়েছে, তা ছাড়া তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। সার্বিক বিবেচনায় আমাদের প্রত্যাশা, রোজিনা ইসলাম জামিন পাবেন।

এর আগে মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসিম পুলিশের করা রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করে রোজিনার জামিন শুনানির জন্য ২০ মে দিন ধার্য করেন।

পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য গত সোমবার রোজিনা ইসলাম সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান। সেখানে বেলা তিনটা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ৫ ঘণ্টার বেশি সময় তাকে একটি কক্ষে আটকে রেখে শারিরীক ও মানষিকভাবে হেনস্তা করা হয়। একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাত ৯টার দিকে তাকে সচিবালয় থেকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে রাতে রোজিনার বিরুদ্ধে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ৩৭৯ ও ৪১১ ধারায় এবং অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের ৩ ও ৫ ধারায় শাহবাগ থানায় মামলা করা হয়। পরে পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নিদের্শ দেন আদালত।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন


এ জাতীয় আরো খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর